চাকমা মেয়েদের খোলামেলা মাছ ধরা !(ভিডিওসহ)

চাকমা মেয়েদের খোলামেলা মাছ ধরা !(ভিডিওসহ)

এমন ম্যাচ হারের পর সরাসরি যাকে দুষলেন মাহমুদুল্লাহ
মুশফিকুর রহীম আবার বুক চিতিয়ে দাঁড়িয়েছিলেন। কিন্তু রোজ রোজ রেকর্ড গড়ার উপায় থাকে না। আর যখন টপ অর্ডার ব্যাটসম্যানরা আত্মহত্যা করেন, বারবার ব্যর্থ ব্যাটসম্যান নিজের উইকেটের মূল্য বোঝেন না, তখন নাগালে থাকা রানই পাহাড় হয়ে বুকে চেপে বসে। কলম্বোতে তাই মুশফিক টানা দ্বিতীয় ফিফটি করে অপরাজিত থাকেন আগের ম্যাচের মতো। তার ক্যারিয়ারসেরা ঠিক ৭২ রানের পরও বাংলাদেশ হারে ১৭ রানে। এই হারের পেছনে ৪৬টি ডট বলেরও তো বড় ভূমিকা।

ম্যাচের পর অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহও বলে যান, উড়ন্ত সূচনা চেয়েছিলেন তারা। কিন্তু তার ভাষায়, ‘শুরুতেই বেশি উইকেট পড়ে যাওয়ায় মোমেন্টামটা আর থাকেনি।’

অবশ্য টাইগার অধিনায়ক উল্লেখ করেছেন তামিম আর লিটনের দ্রুত আউটের কারনেই দলের এমন দশা হয়েছে। তবে সামনের অঘোষিত সেমিফাইনালে জিতে ফাইনালে যাওয়ার আশা প্রকাশ করেছেন তিনি।

তবে ফিন্ডিংকে বেশ দুষেছেন তিনি। বলেন, ‘ফিল্ডিংটা আর একটু ভাল করতে পারলে হয়ত আমাদের এত চাপ নেয়া লাগত না’। তবে সামনে এমন না হওয়ার আশা প্রকাশ করেছেন তিনি।

নিদাহাস ট্রফিতে বাংলাদেশকে নিজেদের চেয়ে প্রতিপক্ষের গুনেই এভাবে হারায় ভারত। তাতে কলম্বোর প্রেমাদাসা স্টেডিয়ামে বুধবার ফাইনালে উঠে যায় তারা। আর বাংলাদেশকে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ১৬ তারিখের ম্যাচ জিতে রানরেটের সমীকরণ মেলানোর দুশ্চিন্তা নিয়ে মাঠ ছাড়তে হয়। ভারত ৩ উইকেটে করেছিল ১৭৬। আগের ম্যাচে এই মাঠেই ২১৫ রান তারা করে রেকর্ড গড়ে জেতা বাংলাদেশ এখানে ৬ উইকেটে ১৫৯ রান করে থামে।

ক্রিকেটের বিশ্বস্ত ওয়েবসাইট ইএসপিএনক্রিকইনফো প্রত্যেক বলেরই টেক্সট ধারাভাষ্য দেয় তাদের ওয়েবসাইটে, ম্যাচের সময়। লাইভ। তো তাদের কাছ থেকেই জেনে নিন বাংলাদেশের টপ অর্ডারের আউটের বর্ণনা। ওয়াশিংটন সুন্দরের মতো নবীন ১৮ বছরের স্পিনারের কাছে টাইগারদের এই ব্যাটসম্যানদের এভাবে নতজানু হওয়ার হেতু তারাও বুঝে উঠতে পারে না। ৫.৪ ওভারে ৪০ রানে ৩ উইকেট নেই। টানা তিন ওভারে প্রত্যেকটি উইকেট অফি সুন্দরের। যার মাত্র ষষ্ঠ আন্তর্জাতিক এবং পঞ্চম টি-টুয়েন্টি এটি।

গত ম্যাচে তামিম ইকবালের সাথে ওপেন করে জয়ের ভিত গড়ে দেওয়া লিটন দাসের এদিনের আউটের বর্ণনাটা পড়ুন। ক্রিকইনফো লিখেছে, লিটনকে সামান্য এগোতে দেখে সুন্দর একটু শর্ট এবং ওয়াইড বল দিলেন! পিচ করলো চমৎকার। লিটন বেছে নিলেন সম্ভাব্য সবচেয়ে বাজে শট। অফে বেরিয়ে যাওয়া বলের সাথে নিজের ফারাক রেখে পিচেও তাল রাখলেন না, ইমপ্রোভাইজও করলেন না। তাই ব্যাট-প্যাড থেকে ব্যবধান রেখে বল বেরোয়া। উইকেটকিপার দিনেশ কার্তিক লিটনের খেলা সাঙ্গ করেন। ৭ বলে ৭ রানে তার বিদায়। ১.৫ ওভারে ১২ রানে প্রথম উইকেটের পতন।

সৌম্য সরকার কোথায় দায়িত্ব নেবেন তা না তৃতীয় বলেই বিপদ বাড়ান দলের। এই ব্যাটসম্যান দায়িত্বজ্ঞানহীন। সেটাই বোঝাতে চায় ক্রিকইনফো। ৩.৪ ওভারে সময় নিজের তৃতীয় বলে ১ রানেই বোল্ড। দল তখন ৩৫ এ। কিভাবে আউট? সৌম্যর বুনো উদ্দামতা। মোটেও ভালো ব্যাটিং নয়। আড়াআড়ি ব্যাটে খেলেছেন সৌম্য। ব্যাট-প্যাডের মধ্য পাওয়া বিশাল ফাঁক গলে বল লেগ স্টাম্পে আঘাত হানে। বোল্ড।

এর ৫ রান পর তামিমের আউটকেও তাদের যথার্থ মনে হয় না। ১৯ বলে যদিও ২৭ রান তামিম করে গেছেন। কিন্তু সুন্দর যখন প্রত্যেক ওভারে আঘাত হানছেন তখন তাকেই চার্জ করতে গেছেন। তাও সোজা ব্যাটে নয়। এই সুন্দরই সবচেয়ে বেশি ডট বল দিয়েছেন। ৪ ওভারের ২৪ বলের মাঝে ১৩টি কোনো রানই দেননি!

এরপর ক্যাপ্টেন মাহমুদউল্লাহ তুলে মারতে গিয়ে টাইমিং করতে পারেন না। ক্যাচ দিয়ে ফেরেন। মুশফিক স্বপ্ন দেখাচ্ছিলেন সাব্বির রহমানকে সাথে নিয়ে। ৬৫ রানের জুটি হয়ে গেছে। আর ২১ বলে ৫১ দরকার। কিন্তু ২৩ বলে ২৭ রানে সাব্বির আউট। কিভাবে? অফ স্টাম্পের বাইরের বলে বুনো উপায়ে লেগ সাইডে ঘুরিয়ে মারার চেষ্টা। ব্যাটে লেগে বল স্টাম্প ভাঙে। শার্দুল ঠাকুর ও ভারত উৎসবে মাতে।

এই কথার মানে তো সেই একই। শীর্ষ ব্যাটসম্যানদের দোষেই সর্বনাশ!

Add a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *